আবাসন ও অন্যান্য ॥ অনুপম মুখোপাধ্যায়



আবাসন

গর্তকে জানতে গেলে সাপের খোলস হাতছাড়া হয়

পাথরের ধারালো রূপ ঘাসের উপর দিয়ে
গড়িয়ে যেত বালির জমাট স্তুপে

প্রোমোটার সেই বালি কতদিন জমিয়ে রাখতেন
বালি আবার ১ সময় পাথর হয়ে যেত

ধারালো বা ভোঁতা

কবে না কি ফ্ল্যাটবাড়ি হত
তারে তারে কাপড়ে রোদ শুকোত

আবাসনে ছুরির ফলা
শান্ত বিদ্যুৎ যত লোকেদের ঘর

ছোট ছোট পরিকল্পনা
ধারালো বা ভোঁতা

ছোট ছোট বিফলতায় বিশ্বকর্মা আস্তে আস্তে
খোলসে ঢুকে যান


মাশরুম

বল্লম নয় বাঁশিতে এফোঁড় ওফোঁড়
লোকটা

হেঁটে যাচ্ছে

ভুলে যাচ্ছে
কার সঙ্গে কে কোথায়
শুয়ে আছে এখন

হেঁটে যাচ্ছে
হবিষ্যি আর
প্রোটিন ভ্যালু ছাড়িয়ে

আঁশ তো আর কিছু নয়
আঁশেরই সুনাম

গৃহকাতরতা

জানলা দিয়ে তাকিয়ে দ্যাখো
বাইরে জলের চিৎকার ছড়ানো

বরফের নাম শুনলে চোখ বন্ধ করো
বৃষ্টি কেবল বৃষ্টিতে বিশ্বাস তোমার

স্নো শাওয়ার স্নো শাওয়ার

হৃৎশিকারী জাহাজটা ভোঁ বাজাচ্ছে

জার্মানির আঘাত এসে জার্মানির মেঘকে
তুবড়ে দিয়ে যাচ্ছে

শুধু স্টিয়ারিং

যুবতীহীন যুবকের শুক্রাণুর চেয়ে
নিজের পেছল পা ধরে রাখতে চাই

কোথাও কোনো সার্থকের কথা শোনা গেল
ঘুরে গেল তারও কথা
আর আমি বিশ্রীরকম

আগ্রহী হলাম

আগ্রহ নিয়ে যে খালিপায়ে ছুটে চলা যায়
একসময় ভাবতে পারিনি

যথা ফাঁকা রাজপথে
অকস্মাৎ হর্ন শোনা গেল
টায়ারের দেখা নেই

শুধু স্টিয়ারিং

খাই খাই

৪তলা থেকে ১তলায় খেতে নামতে হবে

ওভার ব্রিজ থেকে প্লাটফর্ম অবধি
চানামশলা খাওয়ার জন্য হাঁটতে হয় তোমাকে

পায়ের পর পা
পায়ের পর পা
পায়ের পর পা

বাড়ি থেকে পাড়ার মোড় অবধি
চা খেতে হাঁটছ

মাঝরাত্তিরে একলা শুয়ে
খিদে পেয়ে যায়
অথচ খাবার নেই
পেটের মধ্যে খাবারের
সুনির্দিষ্ট চাহিদাও নেই

ঢেউ ঢেউ ঢেউ ঢেউ ঢেউ

সাদা মেঘ আর কালো মেঘের মধ্যে
পাতা আছে সামুদ্রিক টেবিলের রং

পাকা ধান আর স্বচ্ছ জলের ধারণায়
বয়ে যাচ্ছে রাসায়নিক নাশকতার গন্ধ


দাগ

শীত চলে গেছে রয়ে গেছে তার
খসখসে রোগা লম্বা ভূত

মাঘের আধখোলা হিমমাখা জুতো

ঘরের কোণে খাটের তলায় ময়লায়
শীতকালের শিরশিরে ভূত

ক্যালেন্ডার উঠিয়ে নিলে যথা
তারিখের ফ্যাকাসে রয়ে যায়

খয়েরি রঙের রঞ্জনও চলে গেছে
রয়ে গেছে তার

রঙচটা সোয়েটারের পড়ে যাওয়া ঘর


হাওয়া

আমি হাওয়া খাই হাওয়া আমাকে খায়

খোলা মাঠের এই ১ সত্য
ফাঁকা মাঠের এই ১ সত্য

রবীন্দ্রনাথ ছাড়া কারও বয়স
আমার চেয়ে অবুঝ নয়

কেবল নিজের দাঁত ছাড়া
কোনোকিছুকেই ভয় করি না আমি

হাওয়া আমাকে খায় আমি হাওয়াকে
জয় করি

মন রে

পেরেকের ডগা আর হাতুড়ির মাথায়
বেগনি রঙের শাড়ি

সংযোগ না হলে কোথায় যে কী হত
আওয়াজ না হলে কথার যে কী হত

তুমি আমার নাগালের বাইরে
তোমাতেই নাক গলানো আজব অভ্যাস

আমার খারাপ মন
শূন্য দিয়ে ছাপা কেমন মন

মনকে যত সন্দেহ করি
তুমি তুমি মানসিকতা জিইয়ে রাখতে চাই

পেরেকের কাজ কী
ছবির দেওয়ালে ১ বেমানান বাড়ি টাঙানো