আর্জেন্টিনার কবিতা ॥ ভ্যালেরিয়া সোলাদাদ লোপেজ



জীবিত (ALIVE)

আমি জানি যে আমি বেঁচে আছি কারণ তুমি আমাকে জীবন দিয়েছো। আমি পাহাড়ে আরোহণ করতে পারি কারণ তুমি বিশ্বাস করো যে আমি উঁচুতে আরোহণ করতে সক্ষম; আমি স্বচ্ছ কারণ আমি আড়াল করার কিছুই জানি না। তুমি আমার চোখ দেখো এবং তুমি তাদের বিশ্বাস করতে পারো কারণ তারা কিছুই লুকায় না। তোমার সন্দেহ আমাকে সুরক্ষা দেয় এবং তোমার সূক্ষ্ম বাহুতেও আমি দুর্বল হয়ে পড়ি। তুমি যদি একদিন আমাকে অগ্রাহ্য করো, আমাকে ভুলে যাও, আমি এক হাজার টুকরোতে ভাগ হয়ে যাব এবং আমার শ্বাস হারিয়ে যাবে জীবনের চিহ্ন ছেড়ে। তারা বিশ্বাস করবে যে আমি এখনও পুরো আছি, যদিও আমি পুরানো আয়না হয়ে যাব,হাসি ছাড়াই ভেঙে যাবো। – শুষ্ক গোলাপ, হারিয়ে গেছে – যে ধীরে ধীরে চলে …


মেঘ (CLOUD)

মেঘ তুমি স্বর্গকে ঘিরে রেখেছো এবং তার বেদনার মুহুর্তগুলোতে তাকে আদর করছো, তোমার উষ্ণ এবং ঠাণ্ডা জলের প্রলুব্ধ প্রেমে। ওখানে তোমার সুন্দর ফেনা জেগে ওঠে। একে কী স্বপ্ন বলবে তুমি! …

মেঘ তুমি ইথার থেকে নেমে আসো; রাতের ধুঁয়ো যা তুমি পর্যবেক্ষণ করো, তাতেই তুমি আড়াল হ‌ও, আকাশকে তোমার জন্য জন্য খুঁজতে হবে … তোমার কোলাহল দৃষ্টান্তমূলক এবং তুমি হট্টগোল করো।…

জীবনে তুমি প্রধান চরিত্র এবং চাঁদ তোমাকে একটি স্ফুলিঙ্গের মতো কাঁপায়; অস্থির তারাগুলোর উদ্দেশ্যে …

মহাবিশ্বে আঁকা মেঘ, তোমার নিজের বৃষ্টি ছাড়া তুমি সমুদ্রের মতো ভেজা। তোমার শিকল স্বর্গে বাঁধা। আমার চরণ ধরা আছে তোমার চিরন্তন সত্তায়।


অনুমতি (LET)

এটি কেবল গদ্য এবং নীতিবচন হিসাবে তোমার কাছে আসুক। এগিয়ে যাও, একটি কবিতা আবিষ্কার করার আগে কোনো অনুভূতিই কাপুরুষোচিত নয়।



ভ্যালেরিয়া সোলাদাদ লোপেজ (Valeria Soledad López), জন্ম ১৯৮২ সালে আর্জেন্টিনায়। মাত্র আট বছর বয়স থেকে কবিতা লেখা শুরু করেন। তার কবিতা স্বপ্ন, চিন্তা ও গল্প -বাস্তবতা ও কল্পকাহিনীর সমন্বয়ে একটা নতুন ধারার সূচনা করেছে। তিনি তাই লেখেন যা তার হৃদয় নির্দেশ দেয়। জ্ঞান চর্চা ও পাঠের প্রতি তার প্রবল আসক্তি। বর্তমানে বসবাস করছেন আর্জেন্টিনার রাজধানী বুয়েন্স আয়ার্সে।

রূপান্তর : মাসুদুল হক