তোমার ট্রেন ও অন্যান্য ॥ রোজীনা পারভীন বনানী



তোমার ট্রেন

তোমার ট্রেন প্রতিদিন ফেলে যাচ্ছে
ইস্টিশন…
আমি দাঁড়িয়ে আছি স্থির, অনঢ়
যেন মাটির খুব গভীরে গ্রোথিত শেকড়
তেমনি এক মহীরুহ…
যেন আমার কোন যাত্রা নেই
নেই ভূত-ভবিষ্যত
কালের সাক্ষী হয়ে দাঁড়িয়ে অনন্তকাল
এই ইস্টিশনে…

উত্তরের বাতাস বয়ে আনছে
তোমার ফেলে যাওয়া ঘ্রাণ-
কি ভীষণ টাটকা সতেজ।
কোথাও নেই কোন ভাঙাচোরা
নেই কোন অসুখী প্রলাপ
আমি অক্সিজেনের মতো
বুক ভরে টেনে নিই
ফিরে পাই প্রাণ…

দিন চলে যায়, হায়।
প্রতীক্ষায়—প্রতীক্ষায়—
কবে থামবে তোমার ট্রেন
কবে ফুটবে আমার শাখায়
তোমার ভালোবাসার অনূঢ়া গোলাপ…


ধরিত্রী

তুমি ঘুমিয়ে থাকো
আমি লিখি।
কি লিখি?
বলার পরেও মনে যে কথা
থাকে বাকি।
তুমি ঘুমিয়ে থাকো
আমি লিখি।
একাকী।
কোভিড কেড়ে নিচ্ছে
লক্ষ- কোটি প্রাণ,
আর তুমি একটু একটু করে
হচ্ছো সতেজ—
বুক ভরে নিচ্ছো যেন
হারানো ঘ্রাণ।
তুমি কি আছো প্রতীক্ষায়
আরও লক্ষ—কোটি প্রাণের?
ফিরে পেতে হারানো যৌবনের?
আমরাও যেন আছি অপেক্ষায়…
তুমি ঘুমিয়ে থাকো
আমি লিখি।
একাকী।


পাখির জীবন

অনেকতো হলো মানব জীবন
চলো তুমি- আমি এবার
পাখি হই—
সব ভুলে
উড়ে উড়ে
চলে যাই
দূরে— বহুদূরে—

মেঘের পালক
গুঁজে চুলে
বজ্র নিনাদ
বেঁধে পায়ের নূপুরে,
তুমিও জ্বেলে নিও
কিছু গোধূলির আলো
ফতুয়ার বোতামে বোতামে
তারপর দুজনে
রংধনুর সাত রং
মুঠো ভরে
তুলে নেবো
আঙুলে আঙুলে
সোনা রং দুপুরে
ভুবন চিলের সাথে
উড়ে উড়ে
ঘুরে ঘুরে
করবো
হলি খেলা

উড়ে উড়ে
ঘুরে ঘুরে
তুমি-আমি
সারাবেলা
খেলা শুধু খেলা …