দুইটি কবিতা ॥ শর্মিষ্ঠা বিশ্বাস



পায়রা

কার্নিশ ভরে গেছে পায়রাতে।
কেবলই বকবাকুম….
দুপুরের ভাতঘুমের পরে কাঁথাফোঁড়ের মেঘলা দিনের বিকেল।
সাতচল্লিশ বছর পর দিদিমার ফোকলা হাসির শব্দ পেলাম মেঘগর্জনের ভাষায়।
কাঁথার ফোঁড়ে উড়ে যাচ্ছে পায়রা রঙা মেঘের স্বরে গোর্কির মা।


ভুবনেশ্বর

সাঁজে
নিজের ঘরেই বসে আছি।
ছায়া হয়ে গেল গাছ।
ভূত্বক ফুঁড়ে বেরিয়ে এলো অতীত।
সামনে দাঁড়িয়ে ভূতের কঙ্কাল।
তাঁর শরীরের খাঁজের ভিতর বিলুপ্তির পরে মৃত মানুষের
অন্তস্থল থেকে বাজছে বেহাগ রাগ।

আলোর জ্যোতি মুখে এসে পড়লো।

পাখি
ফেরিওয়ালার ডাক
গাড়ির হর্ণ
মিছিল
ধর্ণা
দাবি সনদ…

বাঁধভাঙা যৌবনের মহাসঙ্গীতের ডাকের বচন
আমিই এখন একটি বাড়ি।
বাড়ির নাম ভুবনেশ্বর।