নগ্নচাঁদের বাইসাইকেল ॥ শিউল মনজুর


শিউল মনজুর, জন্ম ১৯৬৫ সালের ১ ফেব্রুয়ারি, সিলেটে। আশির দশকের এই কবি তার হাতে খেলা করা শব্দে নির্মাণ করেন ভাবনার নিজস্ব জগৎ, যেখানে পাঠকও খুঁজে পান নিজেকে। গল্প-কবিতা-ছড়া-প্রবন্ধসহ নানা বিষয়ে লিখলেও তার প্রধান পরিচয়, কবি। বিশ্ববিদ্যালয়ের পাঠ শেষে পেশা হিশেবে বেছে নিয়েছিলেন শিক্ষকতা। বর্তমানে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র প্রবাসী কবি লেখালেখির মধ্যেই জীবনের আনন্দ খুঁজে বেড়ান। জন্মদিনে আমাদের শুভেচ্ছা। স.স


নগ্নচাঁদের বাইসাইকেল

কেউ যেনো ডাকছে কেউ যেনো ডাকছে
বহুদূর থেকে কেউ যেনো ডাকছে
বহুদিন পর কেউ যেনো নাম ধরে ডাকছে
তবে আমি বাড়ি যাই, তবে আমি বাড়ি যাই

বাড়ি ডাকছে বাড়ি যাই
বাড়ি যাচ্ছি বাড়ি যাই
শীত ও বসন্তের সুচিপত্র হারিয়ে
এলোমেলো ঘুরতে ঘুরতে বাড়ি যাই

বাড়ি ডাকছে বাড়ি যাই
বাড়িতে কে আছে- কেউ নাই কেউ নাই
তবু আমাকে কেউ যেনো তাড়া করে
পাখিদের গোপন উৎসবে

বাড়ি ডাকছে বাড়ি যাই
লেটুসপাতার গ্রামগুলো পেরিয়ে যেতে যেতে
সহযাত্রী শিশিরভেজা বৃষ্টি মুখার্জীর সাথে
মিতালি করে বাড়ি যাই

দূর থেকে কেউ যেনো ডাকছে
বহুদূর থেকে কেউ যেনো নাম ধরে ডাকছে
শৈশবের কৈশোরের নাম ধরে ডাকছে
সাঁকো পেরিয়ে যেতে যেতে সেই মায়াবতী ডাকছে
তবে আমি বাড়ি যাই, বাড়িতে কেউ নাই

বাড়ি ডাকছে বাড়ি যাই
মায়াবতী ডাকছে, বাড়ি যাই
মায়াবতীর রঙ কী-
শাদা না কালো, হলুদ নাকী নীল
শুধু মায়াবতীই জানে
কবি শুধু জানে-
কবিতার পাঠশালায় গল্পে গল্পে রাফখাতায়
মায়াবতীর সাথে আবারো দেখা হবে
পাহাড়ী ঝর্ণায় নদী মোহনায়
ধানশালিকের ডানায় ডানায়
মায়াবতী ডাকছে বাড়ি যাই
কাদামাটির প্রাণে প্রাণে
লতাপাতার ঘ্রাণে ঘ্রাণে
মায়াবতী জড়িয়ে আছে জন্মভূমির গানে গানে

বাড়ি ডাকছে বাড়ি যাই
লক্ষ কোটিমাইল পেরিয়ে বাড়ির যাই
কখনো জলে ভেসে ভেসে নদী মহানদী পেরিয়ে
কখনো হাওয়ায় ভেসে ভেসে দেশ মহাদেশ পেরিয়ে
শতশত দেশের সীমানা ছুঁয়ে
নগর মহানগর পেরিয়ে বাড়ি ফিরে যাই

একদিন সীমান্ত পেরিয়ে
ভুল করে ভুল ঠিকানায় ঘুরে ঘুরে
তোমাকে খুঁজে খুঁজে মিথ্যের সাথে লড়েছি
অবশেষে সন্ধ্যা পেরিয়ে রাত্রির শেষ প্রহরে
নগ্নচাঁদের বাইসাইকেলে ঘুরতে ঘুরতে
করোনাগ্রস্থ মহাকাল পেরিয়ে
মায়াবতীর জ্যোৎস্নামাখা শিউলিশিশিরের পত্রখানি
এলো যাযাবর যুবকের বিষণ্ন পকেটে

প্রাণভরে মায়াবতী ডাকছে, বাড়ি যাচ্ছি
শীত ও বসন্তের সুচিপত্র হারিয়ে
আজ আমি বাড়ি ফিরছি
মায়াবতী ডাকছে-
মায়াবতীর রঙ কি-
জানে না কবি-
কবি শুধু জানে-
মায়াবতীর নাম শিশিরভেজা বৃষ্টি মুখার্জী।