মারিয়া দেল কাস্তিলো সুসকোয়ারিয়া এর কবিতা



ভাইরাল সমাজ

আমি মুখোশের পিছনে মুখ আঁকছি।
চোখ আমাকে ভেংচি কাঁটে আর পাগল বলে,
হলুদ, লাল এবং সাদা চোখের আবেগ চিৎকার করে
আমার পেইন্টের ব্রাশটিকে গর্ভবতী করে তোলে।

কোয়ারান্টিনের ভয়ানক এবং আকর্ষণীয় রঙ রয়েছে,
পাগুলো মৃত্যুর নান্দনিকতা প্রকাশ করে।

বিশ্বের চিত্রকর্ম মানবতার মুকুটটিকে গ্রীক পুরাণের
মেডুসার মাথায় তুলে দিতে পুনর্বিবেচনা চালায়,

আমি প্রতিটি মুখোশের নিচে যে তিনটি সাপকে পাই
তা চিত্রিত করি।

জুডাস আয়না ভাঙছে,
কায়াফার সহকর্মীর পায়ে পা মেলায়,
পীলাত তার হাত ধুতছে।

উনিশটি টেরোট কার্ড অদৃশ্য হয়ে গেল:
তবু ভালোবাসার চোখ খুঁজে পাই না।


শেষ পুনর্জন্ম

আকাশ আর আমাকে কিছুই বলে না;
শব্দগুলো পেজো তুলোর জন্য আচ্ছাদিত হয়ে আছে
এবং আমি ওদের নরম আর সাদায় ভরা নীরবতা দিয়ে আমার রক্ত ​​পরিষ্কার করি।

আমি বৃষ্টির গন্ধ পাই, তবু এর সঙ্গীতে নাচতে ভুলে গেছি বেমালুম
আমার মাথা ওদের আঙ্গুলিকে স্মরণ করে মাত্র
একটি পাখির চিরন্তন কণ্ঠে গান শোনা যাচ্ছে,
যখন হাজার হাজার কাঁটা পৃথিবী জুড়ে নিমিষে ছড়িয়ে পড়ছে।

আমার অঙ্গের ডালপালাগুলো আর হৃদয়কে অনুসরণ করে না,
আমি কীভাবে ফুল ফোটব তা নিয়েই ভাবতে থাকি।
সূর্য আর দিগন্তের দিকে তাকায় না;
এবং অর্কেস্ট্রার প্রারম্ভিক সুরের মতো এলোমেলো চিৎকার করছে যেন।
বসন্ত আর আমার বাগানে ফিরবে না,

আমি আলোর দিকে যেতে পারছি না।
তাই আমার শেষ ইচ্ছা:
আমার গোলাপগুলোকে আরও একবার বিকশিত হতে দাও।


আবেগের মৌসুম

রজনীগন্ধা ফুলগুলো রয়েছে মেঝেতে পড়ে।

তোমার ভালবাসায় এই বন আর অভিসিক্ত নয়,
আমার হলুদ অশ্রু ওদের সবুজ পোশাককে মিস করেছে; প্রকৃতির রঙ প্রায় বিলুপ্ত হয়ে যাচ্ছে।

তবুও বাতাস তোমার পরাগের স্বর্গ নিয়ে আসে,
অথচ পরাগ বপনের আর কোনো গর্ভ নেই।

এই শরতে তোমার সুগন্ধ রয়েছে।
আমি আমার মৃত আকাঙ্ক্ষাকে জাগিয়ে তুলি,
তোমার তরোয়ালের রৌপ্য চিহ্নে।

এটি ফুলের চেয়ে বীজ গুরুত্বপূর্ণ,
বসন্ত ফিসফিসিয়ে বলে।



মারিয়া দেল কাস্তিলো সুসকোয়ারিয়া (১৯৯৭) কবি, কথক, পরামর্শদাতা, অনুবাদক এবং প্রাচ্য মেডিসিন থেরাপিস্ট। জন্ম কলম্বিয়ার বারানকুইলায়। মূলত স্পেনিস ভাষায় কবিতা রচনা করেন। পাশাপাশি ইংরেজিতেও লেখেন।
তিনি অসংখ্য আবৃত্তি উৎসব এবং স্থানীয় ও জাতীয় সাহিত্য সভায় অংশ নিয়েছেন। তার কবিতা ইংরেজি, বাংলা ও কানাড়া ভাষায় অনূদিত হয়েছে। তার কবিতা “El Heraldo”, “Latitud”, “Sol y Luna”, “Crisol, María Mulata”, “El Espectador”, “Filogicus”, “Por esto”-সহ জাতীয় এবং আন্তর্জাতিক এন্থোলজি, ব্লগ, ম্যাগাজিন এবং সংবাদপত্রগুলিতে নিয়মিত প্রকাশিত হচ্ছে।

রূপান্তর : মাসুদুল হক