রাজা পুনিয়ানী’র কবিতা

জোকার (Joker)


১.
শহর জ্বলছে
শহর কাঁপছে
শহর নীরব রয়েছে।
শহরে এসেই
জোকারদের গাড়ি
প্ল্যাকার্ড উচিয়ে জানায়-
‘ধনীদের বিনাশ করো’।

২.
একদিন আমাকে সে
একটি টেক্কা দেখালো
এই যে…
আমি একটা জোকার দেখালাম।
ব্যস সমান- খেলা শেষ।

৩.
জোকার কি কাঁদছে?
নাকি সে হাসছে?
জানতে চাইলে,
তোমার জীবনকে খুঁজে দেখো
তা হলেই বুঝতে পারবে।

৪.
এক সকালে
আমার কপাল চুলকালে
ঘুম জড়ানো চোখ ঘষে দেখি
একটা ভিন্টেজ পিস্তল
আমার‌ই কপালে তাক করা রয়েছে।
আমার ভেতর গভীর ঘুমে
ডুবে থাকা জোকারটি
সকাল সকাল অস্থির হয়ে ওঠে।
সে যে জোকার।

৫.
সে কোনো স্কুল পড়েনি,
স্কুলের দিনগুলোতে সে নেশায় মদির,
স্কুল থেকে ঝরে পড়া একজন।
সে স্কুলের কোনো মূল্য কখনই রাখেনি,
কিংবা স্কুলের দেয়ালকেও নিজের ভাবতে পারেনি
স্কুলের প্রতি তার ঘৃণাই রয়েছে।
স্কুল গড়ায়,
সে কখনই ছিল না।
স্কুল ব্যতীত, মহৎ মানুষের কল্পনাই ছিল তার মনে।
না তিনি গৌতম বুদ্ধ
না টমাস আলভা এডিসন।
রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর নন তিনি
বিল গেটসও
সে ছিল না।
সে আসলে কেউ না।
সে এক জোকার,
সে অনুভব করেছে
পৃথিবীই ছিল তার স্কুল।

৬.
একদিন সত্য বেরিয়ে এলো,
আমি কিন্তু একজন জোকার ছিলাম
এতোদিন, এতসময়।
যেদিন জোকারকে দেখলাম
আমার মধ্যে।
সে জোকারকে চিনতে
আমি ব্যর্থ হলাম।

৭.
হা! হা! হা!
এই কি জোকার?
তুমি আমাকে জোকার সাব্যস্ত করার আগে
তোমার দিকে তাকাও।
তোমার ভেতরে ধ্বনিত হচ্ছে
একটি জোকার বারবার
আর হাসতে হাসতে পৃথিবী
ঘুরছে তোমার চারদিকে।


রাজা পুনিয়ানী (Raja Puniani) মূলত নেপালী ভাষার কবি। তবে লেখক, গীতিকার, অনুবাদক, অভিনেতা ও শিল্পী হিসেবেও সমধিক পরিচিত। তার সিরিজ কবিতা ‘আরকো লস্কর’ (The Other Caravan ) ২০১৩ সালে প্রকাশিত হয়। তার ইকো-কবিতা Tale of a Numb Planet ডেনমার্কের কোপেনহেগেন বিজনেস স্কুলের জলবায়ু পরিবর্তন পাঠ্যক্রমের রেফারেন্স উপাদান হিসাবে অন্তর্ভুক্ত। তিনি বেশকিছু নেপালি ও ইংরেজি দৈনিকের সঙ্গে কাজ করছেন। তার কবিতা ও প্রবন্ধসমূহ ভারত ও নেপালের জার্নাল ও ম্যাগাজিনে নিয়মিত প্রকাশিত হয়। তিনি ভিজ্যুয়াল কাব্য উপস্থাপনার নতুন ধারা ‘মাল্টিমিডিয়া কবিতা’ নামে প্রোগ্রামের সূচনা করেছেন। এছাড়া ২০১৯ সালে দার্জিলিংয়ের শিলিগুড়িতে অনুষ্ঠিত ‘সাংগ্রি- লা দার্জিলিং লিট ফেস্ ‘ নামক আন্তর্জাতিক সাহিত্য উৎসবের আহ্বায়কের দায়িত্ব পালন করেছেন। কবি রাজা পুনিয়ানী ভারতের দার্জিলিংয়ের ‘সুকনা’তে বসবাস করেন।

নেপালী থেকে ইংরেজি : নির্মিকা সুবা
বাংলায় রূপান্তর : মাসুদুল হক