সিংহাসন ও অন্যান্য ॥ শুভ্রশংকর দাশ




সিংহাসন

হট সিট পুড়ে গেছে, মেহফিল কার যে
কুট্টুস হারিয়েছে টিন টিন হার্জে



আগন্তুক

ছবি তোলার কায়দা, ক্যামেরা বন্দী করেও,
ফটোগ্রাফারের দর্শন বোঝা যায়।

এমনি এক শীতের সকালে, কুয়াশাঢাকা শহরতলীতে,
ঘরের সাথে আগন্তুকের দেখা হল।
হুডতোলা রিক্সায় বসে, এই দৃশ্য বন্দী করছিল
এক গন্ধের কারিগর।

গন্ধ শুঁকে, অন্ধ হওয়ার শোক, মেটাতে না পেরে,
অনেকেই
দর্শন ও ধর্ষণের মাঝের দেয়াল ভেঙে ফেলে।
নির্ভয়ে, প্রিয় অঙ্কের শুন্যে ঠুসে দেয় সুখের ইঁদুর।

এইখানে, বাড়ি বানানোর জিনিস পড়ে আছে। মালিক নিখোঁজ।
অনির্মিত বাড়ির কামরা থেকেও,
পোড়া পোড়া গন্ধ আসে

তৃপ্তির ঢেঁকুর তুলে যারা দহনযজ্ঞ থেকে বিরত থাকে,
তৃপ্তির পাঠশালায় খুঁজে ফেরে মাংসের ঝিল,
তাদের পুরস্কৃত করা হোক। খুলে দেয়া হোক গবেটের তহবিল

ইদানিং রাস্তায়, কিছু পাগল
দুপায়ের সন্ধিতে প্রশ্নচিহ্ন ধরে বসে থাকে
না হয় দেয়ালে দেয়ালে লিখে বেরায়
‘ভেতরে পুরুষ আছে; সাবধান’!



পেঁয়াজকলির মোহ

জলের সাথে সঙ্গম সেরে
শরীরহীনতায় ভোগে
ভিন পুকুরের কৈ।

ডুব দিয়ে দেখে আসে
কোথাকার জল কোথায় গিয়ে বরফ হয়েছে,
ফসিল হয়েছে ভগ্ন অঙ্কুর।
পেঁয়াজকলির মোহ
তিল তিল করে মুছে দিচ্ছে
অস্পৃশ্য সাবানের গুঁড়ো…

জলের প্রতি আসক্ত হলেই গলে যেতে হবে
তবু জলের কাছেই বিবাহের প্রস্তাব রাখি বারবার

ফুলেতে শবের গন্ধ পেলে
বাগান খুঁড়ে দেখি…
মাটির নিচে ঘর বাঁধছে
বৃদ্ধ ফিনিক্স